গ্রাম আদালতে ন্যায় বিচার নিশ্চিত করা সম্ভব

গ্রাম আদালতে ন্যায় বিচার নিশ্চিত করা সম্ভব

 চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ বলেছেন, গ্রাম আদালত পরিচালনার মাধ্যমে ন্যায় বিচার নিশ্চিত করা সম্ভব। গ্রাম আদালত পরিচালনার মাধ্যমে স্থানীয় পর্যায়ের যেকোনো মামলা নিরসন করা সম্ভব। স্বচ্ছতার সাথে গ্রাম আদালত কার্যকর সঠিক বিচার শতভাগ নিশ্চিত করতে পারে।

গ্রাম আদালতে ন্যায় বিচার নিশ্চিত করা সম্ভব


গতকাল ১০ ফেব্রæয়ারি বুধবার সকাল থেকে চাঁদপুর জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে গ্রাম আদালত সম্পর্কে ব্যাপক জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহের অংশগ্রহণে সমন্বিত পরিকল্পনা প্রণয়ন সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

জেলা প্রশাসক আরো বলেন, একজন মানুুষ যেকোনো মামলার ঝামেলার কারনে নিঃস্ব হয়ে যায়। আমরা আশা করি, প্রান্তিক পর্যায়ে মানুষের বিচার প্রাপ্তির একটা নির্ভরযোগ্য মাধ্যম হোক গ্রাম আদালত। এই বিচার কার্য করার ক্ষমতা সরকার আপনাদেরকে দিয়েছে। যা অন্য কোনো সেক্টরকে প্রদান করেনি। গ্রাম আদালত পরিচালনা করার ক্ষেত্রে আপনারা শতভাগ স্বচ্ছতা ও নিরপেক্ষতা বজায় রেখে কাজ করবেন। কারন, আপনাদেরকে মনে রাখতে হবে প্রতিটি বিচার কাজের জন্য আল্লাহর কাছে জবাবদিহিতা করতে হবে।

সভায় স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মাহমুদ জামান সভাপতিত্বে ও ডিএফ (এভিসিবি ২য় পর্যায় প্রকল্প) চাঁদপুর জেলার কর্মকর্তা এইচ এম আকরাম হোসেনের সঞ্চালনায় আরো বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) মোঃ আসাদুজ্জামান, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সানজিদা শাহনাজ, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবিদা সিফাত, মঞ্জুরুল মোর্শেদ, জেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা রজত শুভ সরকার, জেলা তথ্য অফিসার দেলোয়ার হোসেন, জেলা তথ্য অফিসার দেলোয়ার হোসেন, খাদেরগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সৈয়দ মঞ্জুর হোসেন প্রমুখ।

সভায় সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে আগতদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ছগির আহমেদ সরকার, রেজাউল হক, নুর মোহাম্মদ, ইসমাইল হোসেন, শীতল কুমার সাহা, আবদুস সালাম, জিয়াউর রহমান, শাহাদাত হোসেন, নুরুল আমিন, বেবি সাহা, কবিতা ইসলাম, জাহিদ হাসান, মনিরুল ইসলাম, মাহমুদুল হাসান, জহিরুল হক, আমিনুল ইসলাম, বিল্লাল হোসেন প্রমুখ।

উল্লেখ্য, জুলাই ২০১৭ থেকে জানুয়ারি ২০২১ পর্যন্ত চাঁদপুর জেলার গ্রাম আদালতে সর্বমোট মামলার সংখ্যা ৯৫৬৮টি। এর মধ্যে নিষ্পত্তিকৃত মামলার সংখ্যা ৯৪৫৫। সিদ্ধান্ত বাস্তবায়িত হওয়া মামলার সংখ্যা ৬৭৫৯। চলমান মামলার সংখ্যা ১১৩টি। ক্ষতিপূরণ আদায় করা হয়েছে ৫ কোটি ২১ লাখ ৫১ হাজার ৭৬৬ টাকা।


Newer Posts Older Posts

Related posts