হাজীগঞ্জে শ্যালো মেশিন দিয়ে খাস জমি থেকে মাটি উত্তোলন

হাজীগঞ্জে শ্যালো মেশিন দিয়ে খাস জমি থেকে মাটি উত্তোলন

 হাজীগঞ্জে সরকারি খাস জমিতে শ্যালো মেশিন বসিয়ে মাটি কাটার অভিযোগ উঠেছে আরেক সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি কবির বকাউলের বিরুদ্ধে। খাস জমি থেকে মাটি কাটার অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থলে লোক পাঠিয়ে মেশিন বন্ধ রেখেছেন ইউনিয়ন ভূমি অফিস কর্মকর্তা বাহাদুর। ঘটনাটি উপজেলার ৪নং কালচোঁ দক্ষিন ইউনিয়নের কালচোঁ মাঠে। 

হাজীগঞ্জে শ্যালো মেশিন দিয়ে খাস জমি থেকে মাটি উত্তোলন


স্থানীয়রা জানান, কালচোঁ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাট ভরাটের জন্য ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি কবির বকাউলসহ অন্যান্যরা সরকারি খাস জমিতে শ্যালো মেশিন দিয়ে মাটি উত্তোলন করছে। ৯ ফেব্রæয়ারি মঙ্গলবার থেকে শ্যালো মেশিন চালু করে, তবে বুধবার সকাল ১০ টায় পর্যন্ত মেশিন চালু থাকলে ইউনিয়ন তওসিলদার লোক পাঠিয়ে এর কার্যক্রম বন্ধ করে দেন।

এরপূর্বে কালচোঁ গ্রামের মজুমদার বাড়ির লোকজন খাস জমির মালিকানা দাবি করে মাটি উত্তোলনকারীদের বাঁধা দেন। তাদের বাঁধা উপেক্ষা করে বুধবার সকাল ৮ টায় পুনরায় ড্রেজার মেশিন চালু করলে তারা মাটি উত্তোলনকারীদের বাঁধা দিলে তারা পিছু হটেন। পরে বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি কবির বকাউল, স্থানীয় মোস্তফা কামাল তপদার ও বাহার মজুমদার কয়েকজনকে অভিযুক্ত করে ও খাস জমি থেকে মাটি উত্তোলনের জন্য উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) কানিজ ফাতেমার নিকট একটি লিখিত আবেদন করে।

তাদের আবেদনের প্রেক্ষিতে উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) কানিজ ফাতেমা ইউনিয়ন তওসিলদারকে সরেজমিন তদন্ত পূর্বক তার দপ্তরে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য নির্দেশনা প্রদান করেন। এ পর্যন্ত শ্যালো মেশিন দ্বারা মাটি কাটা যাবে না বলে আবেদনকারীদের মৌখিক ভাবে জানিয়ে দেন।

তিনি আরো বলেন, যেহেতু ড্রেজার মেশিন নিষিদ্ধ, তাই ড্রেজার দিয়ে মাটি কাটা যাবে না। এবার খাস হোক আর মালিকানা হোক। কেবল মাত্র লেবার দিয়ে মাটি কাটতে হবে। এছাড়া সরকারী খাস সম্পত্তি থেকে মাটি কাটার জন্য আমি অনুমতি দিতে পারবোনা। এটা অনুমতি দেয়ার মালিক ভূমি মন্ত্রনালয়।  

বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি কবির বকাউল বলেন, এ সম্পত্তি থেকে অনেকে মাটি বিক্রি করেছে। আমরা বিদ্যালয় মাঠ ভরাটের জন্য ড্রেজার মেশিন বসিয়েছি। অল্প কয়েক ঘন্টা মাটি কাটার পর বন্ধ করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) কানিজ ফাতেমা বলেন, বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ খাস জমি থেকে মাটি কাটার জন্য আমার কাছে অনুমতি চেয়েছে। কিন্ত এ বিষয়ে আমি অনুমতি দিতে পারি না। অনুমতি দিবে ভূমি মন্ত্রনালয়। তারা যেন খাস জমি থেকে আর মাটি না কাটে, এ জন্য বিদ্যালয়ের লোকদের মৌখিক ভাবে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। সে সাথে সরকারি খাস জমির সীমানা নির্ধারন করার জন্য তওসিলদারকে আদেশ দেয়া হয়েছে।


Newer Posts Older Posts

Related posts