প্রধান আসামী আটক ও হত্যার দায় আদালতে স্বীকারোক্তি

প্রধান আসামী আটক ও হত্যার দায় আদালতে স্বীকারোক্তি

ফরিদগঞ্জে চাঞ্চল্যকর জেলে অনাথ দাস হত্যা মামলার প্রধান আসামী সুবল দাসকে আটক করেছে চাঁদপুর পিবিআই। গতকাল ২৫ আগস্ট বুধবার সকালে ঢাকার কামরাঙ্গীরচর এলাকা থেকে সুবল দাসকে আটক করে দুপুরে তাকে চাঁদপুরের বিজ্ঞ আদালতে হাজির করলে সে হত্যার সাথে জড়িত বলে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে। বুধবার বিকেলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পিবিআই পরিদর্শক আবু বকর সিদ্দিক বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

প্রধান আসামী আটক ও হত্যার দায় আদালতে স্বীকারোক্তি


পিবিআই জানায়, গত ১৯ জুলাই জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে অর্থের বিনিময়ে তাকে হত্যা করে লাশ খালের পানিতে ফেলা দেয়া হয়। এরপর ২৫ জুলাই অনাথের লাশ উদ্ধারের পরপরই সুবল দাস পালিয়ে যায়। ওদিকে লাশ উদ্ধারের পরপরই অনাথের ছেলে সুবাশ দাস বাদী হয়ে ফরিদগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। অপরদিকে, থানায় মামলা হলেও পিবিআই ছায়া তদন্ত শুরু করে। এরই ধারাবাহিকতায় ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে পাইকপাড়া দক্ষিণ ইউনিয়েনের সেকান্দর গাইন ওরফে শেখার ছোট ছেলে সোহাগকে আটকের পর সে হত্যার কথা স্বীকার করে এবং আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেয়।

সোহাগের কাছ থেকে অনাথ দাসের মুঠো ফোনটি উদ্ধার করা হয়। বর্তমানে সোহাগ জেল হাজতে রয়েছে। অর্থের বিনিময়ে এ হত্যাকাÐের সাথে জমি সংক্রান্ত বিরোধের মূলহোতা সুবলদাসসহ ৪ জন জড়িত। তারা সবাই পলাতক রয়েছে। এরমধ্যে প্রধান আসামী সুবল দাস বিভিন্ন সময় স্থান বদল করার কারনে তাকে আটক করতে বিলম্ব হয়েছে। সর্বশেষ গতকাল ২৫ আগস্ট বুধবার সকালে ঢাকার কামরাঙ্গীরচর এলাকা থেকে হত্যা মামলার প্রধান আসামী সুবল দাসকে আটক করতে সক্ষম হয় পিবিআই।

উল্লেখ্য, গত ১৯ জুলাই সোমবার সকালে তিনি কড়ৈতলীর পাশ্ববর্তী শাহী বাজারে মাছ বিক্রি করতে যায়। মাছ বিক্রি করে তিনিসহ লোকজন এসে কড়ৈতলী বাজারের একটি চায়ের দোকানে এসে চা খায়। পরে সেখানেই তার কাছে একটি ফোন আসে। এরপর তার সঙ্গীদের কাছে তার কাজ আছে বলে চলে যায়। এরপর থেকে তার আর খোঁজ মিলেনি। শেষে নিখোঁজের সপ্তাহ খানেক পর ২৫ জুলাই অনাথের অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পরে ঐ দিনই ফরিদগঞ্জ থানায় নিহেতের ছেলে সুভাষ দাস মামলা দায়ের করে। একই সাথে ছায়াতদন্তে নেমে পিবিআই ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে পাইকপাড়া দক্ষিণ ইউনিয়েনের সেকান্দর গাইন ওরফে শেখার ছোট ছেলে সোহাগকে আটকের পর সে হত্যার কথা স্বীকার করলে হত্যাকÐের রহস্য উন্মোচিত হয়। সর্বশেষ গতকাল ২৫ আগস্ট বুধবার সকালে ঢাকার কামরাঙ্গীরচর এলাকা থেকে হত্যা মামলার প্রধান আসামী সুবল দাসকে আটক করে দুপুরে চাঁদপুরের বিজ্ঞ আদালতে হাজির করলে হত্যার সাথে জড়িত বলে সে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে।


Newer Posts Older Posts

Related posts